সেরা প্রসেসর বেছে নিন- Kirin vs Snapdragon vs Mediatek vs Bionic vs Exynos Samsung

admin

Administrator
Staff member
Jul 14, 2020
50
6
8
Smartphone-processor-min.jpg
প্রসেসর আমাদের জন্য কেন এত ইম্পরট্যান্ট একটা স্মার্টফোনে প্রসেসর নিয়ে এত কেন কথা হয় ?

এবং আজকে আমি আলোচনা করব যে এত রকম কোম্পানিতে আছে তার মধ্যে কোন কোম্পানির প্রসেসর সব থেকে ভালো ।

আমরা প্রত্যেকটা কোম্পানির লিডিং চার-পাঁচটা ব্র্যান্ড আছে প্রত্যেককে ধরে ধরে আলোচনা করব এবং সিদ্ধান্ত পৌঁছাব এবং কার প্রসেসর সবথেকে ভালো আমরা কোন কোম্পানির প্রসেসর আমাদের ফোনে পেলে আমরা সব থেকে বেশি লাভবান হব ।

তাহলে আসুন এইবার মূল কথায় আসা যাক ।

Kirin-980-1-min.jpg
Kirin Processor
Kirin প্রসেসর খুবই ভালো তারা ARM থেকে প্রসেসর এর আর্কিটেকচার নিয়ে আসে এবং সেটা TSMC ল্যাব থেকে তারা তৈরি করে এবং তাদের প্রচারের পারফরম্যান্স ভালো তাদের প্রতিষ্ঠানের এমপিও ভালো তাদের প্রচারের আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ভালো কিন্তু তাদের প্রসেসর সাধারণত দেখা যায় GPU এর ক্ষেত্রে অর্থাৎ গ্রাফিক্স কতটা ভালো হবে গেমের ক্ষেত্রে কত ভালো পারফর্ম করবে সেখানে একটু পিছিয়ে থাকে । অবশ্যই Huawei এর অনেক ফোনে দারুন গেম চলে । কিন্তু আমি বলতে চাইছি ওই একই ক্যাটাগরির একই রকম সমান মাপের আরেকটা যদি আমরা প্রসেসর নি অন্য কোন একটি লিডিং কোম্পানির তার তুলনায় Huawei এর প্রসেসর এর গ্রাফিক্স টা একটু দুর্বল হয় ।

Huawei প্রসেসর এর সফটওয়্যার আপডেট অতটা ভালো থাকে না যতটা থাকা উচিত । তাদের প্রসেসর এ GKM সাপোর্ট পাওয়া যায় না কারণ ডেভলপাররা তৈরি করে না GKM প্রসেসর এর জন্য । এবং শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি কথা তাদের ইমেজ প্রসেসিং আইএসপি সেখানেও তাদের একটু দুর্বলতা আছে । হ্যাঁ আমরা জানি যে Huawei ফোনের ক্যামেরা কোয়ালিটি ইমেজ প্রসেসিং খুবই দুর্ধর্ষ হয় কোন সময় ফিচার বা আপডেট এগুলা অনেক দেরি করে আসে । যেমন 4K 60FPS এ ভিডিও রেকর্ডিং এর যে ব্যাপারটা সেটা Qualcomm যবে দিয়েছিল তার থেকে প্রায় এক বছর বাদে আমরা Huawei ফোনে পেয়েছি । কারন Huawei ফোনের প্রসেসর এটা সাপোর্ট করত না এবং এখন Huawei এর Kirin প্রসেসর বড় সড় প্রশ্নের মুখে দাঁড়িয়ে পড়েছে কারণ আমেরিকা তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে তারা ARM থেকে আর্কিটেকচার টেকনোলজি কিনতে পারবে না । TSMC দিয়ে তারা প্রসেসর তৈরি করাতে পারবেনা তারা শেষ অব্দি কি করবে সবার মনে প্রশ্ন এবং এই প্রশ্নের এখন অব্দি কোনো মীমাংসা নেই তাই আমরা এই প্রশ্নটা ছেড়ে দিয়ে পরের প্রসেসর এর দিকে যাব ।


Exynos 9810 - Samsung.jpg
Samsung Exynos Processor
আমরা পরের প্রসেসর নিয়ে আলোচনা করব এক্সিনোস স্যামসাং এর নিজস্ব নিজের ক্ষেতের চাষ অর্থাৎ এক্সিনোস প্রসেসর আমরা সাধারণত দেখি স্যামসাংয়ের সব ফোনেই এবং একটা সময় ছিল যখন এক্সিনোস প্রসেসর বিশেষত ফ্ল্যাগশিপ গ্রেডেড দামি দামি এক্সিনোস প্রসেসর মার্কেটে লিড করত । Qualcomm তাদের সাথে কম্পিটিশনে পারত না কিন্তু সেসব সেই ডাইনোসর যুগের কথা পাঁচ বছর আগের কথা যখন এক্সিনোস প্রসেসর এতটাই ভাল ছিল । এখন এমন অবস্থা দাঁড়িয়েছে যে স্যামসাংয়ের এক্সিনোস প্রসেসর আমরা চাইনা আমাদের ফোনে বহুদেশে পিটিশন জমা হচ্ছে যে এক্সিনোসের প্রসেসর আপনারা স্যামসাংয়ের ফ্ল্যাগশিপ ফোন দেবেন না ।

স্যামসাং এক্সিনোসের প্রসেসর তৈরি করে তাদের ফোনে খরচ বাছানোর জন্য তাদের লাভটা প্রচুর চায় প্রচুর লাভ করার জন্য তারা নিজস্ব প্রসেসর তৈরি করেছে তারা দু-একবার বিক্রি করার ও চেষ্টা করেছে ভিভো কিনে কিছু ফোনে দিয়েছিল কিন্তু সেটা সফল হয়নি । এক্সিনোস প্রসেসর অনেক দুর্বল দিক ও আছে আবার ভাল দিকও আছে প্রথমত এক্সিনোস প্রসেসরের আমরা আপডেট দেরি করে পায় তাদের প্রসেসরের জন্য কাস্টম রম ঠিকঠাক ডেভলপ করা হয় না । GKM এর সাপোর্ট ঠিকঠাক পাওয়া যায় না কিন্তু তার থেকেও বড় সমস্যা তাদের ফোনে যে GPU থাকে সেটা থাকে মালির GPU . যে GPU টা কোথাও না কোথাও গিয়ে দিনের শেষে দেখা যায় সেটা স্ন্যাপড্রাগন এর অ্যাড্রিনো GPU থেকে পিছিয়ে আছে । হ্যাঁ স্যামসাং ও ARM এর থেকেই টেকনোলজি কিনে তারপর তারা নিজেরা সেটার উপর কিছু মডিফিকেশন করে তারপর তারা মেঙ্গুজ আর্কিটেকচার নাম দিয়ে প্রসেসর মধ্যে থেকে ইম্প্লেমেন্ট করে এবং তারপর দেখা যায় সেটার প্রসেসিং পাওয়ার অত ভালো নয় ।

স্যামসাং এ সব সমস্যা কাটিয়ে ওঠার জন্য এখন আমরা জানি যে তারা এমডির সাথে টাই আপ করছে । স্যামসাং তাদের ইমেজ প্রসেসিং এর ক্ষেত্রে আরও উন্নতি করার জন্য গুগলের সাথে টাইস আপ করছে এবং ভবিষ্যতে তারা আশা করা যায় খুব ভালো ভালো প্রসেসর নিয়ে আসবে । তাদের প্রসেসরে এমনিতে কিন্তু পিকচার প্রচুর থাকে আইএসপির ক্ষেত্রে তাদের প্রচুর ফিচার থাকে । খেয়াল করবেন তাদের এক্সিনোস প্রসেসরে কিন্তু 8K ভিডিও সাপোর্ট দিচ্ছে প্রায় সবার আগে ।

একদম অসম্ভব ভালো এই জায়গাটাতে কিন্তু তাদের মিড রেঞ্জ প্রসেসর নিয়ে কিছু বলার নেই সেগুলো স্যামসাং অবস্থায় বানায় । এবং সেগুলো গরম হয় গেমপ্লের ক্ষেত্রে ভালো কাজ করেনা মালি GPU সেখানে বারবার লেগ করে । এবং স্যামসাংয়ের মিড রেঞ্জ বা লো রেঞ্জর যে প্রসেসর আছে সেটা নিয়ে আমরা কেউই সন্তুষ্ট নয় । ঠিক এরকম ভাবে একটা সময় ছিল যখন আমরা মিডিয়াটেক কে নিয়ে সন্তুষ্ট ছিলাম না ।


MediaTek-Helio-P35-1000-min.jpg
Mediatek Processor
মিডিয়াটেক সাধারণত একদম লো বাজেট এর কমদামি ফোন গুলোর জন্য বিশেষত যেসব কোম্পানি গ্রাহকদের পকেট কাটে মানে ভিভো অপও (OPPO) এর মত কোম্পানি তাদের ফোনগুলোর জন্য প্রসেসর বানাত । যেসব ফোনে দুর্বল কমজোরি খারাপ প্রসেসর থাকত এবং ফোন গুলোর দাম অনেক বেশি হতো সেই মিডিয়াটেক সেই মিডিয়াটেক এখন কিন্তু পাল্টে গেছে মিডিয়াটেক প্রসেসর আমরা জানি এখন অনেক বেটার হয়েছে তারাও ARM এর থেকেই আর্কিটেকচার কেনে এবং তারা কোনো মডিফিকেশন করে না সরাসরি বসিয়ে দেয় । মিডিয়াটেকের প্রসেসর এ আমরা দেখছি যে তারা লো বাজেটের নতুন যে প্রসেসর বের করছে ।

মিডিয়াটেকের হিলিও সিরিজ G70 P60 P80 G85 এসব যে তারা প্রসেসর বের করছে সেগুলো গেমিং এর জন্য খুবই ভালো প্রসেসর তাতে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স খুব ভালোভাবে দেওয়া আছে । আসলে তাদের এই ঘুরে দাঁড়ানোটা শুরু হয়েছিল বলা যায় তাদের মিডিয়াটেকের হিলিও G90T প্রসেসর দিয়ে যেটা আমরা রেডমি নোট এইট প্রো তে দেখেছিলাম । সেই প্রসেসরটা গেমিং এর জন্য দুর্ধর্ষ প্রসেসর কোথাও কোথাও গিয়ে সেটা কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন 700 প্রসেসর এর থেকেও বেটার পারফর্ম করেছে । তাই G90T গেমিং এর জন্য সেরা প্রসেসর । মিডিয়াটেক তারপর থেকে অবশ্যই সুনামের অধিকারী হয়েছে এবং এখন বহু কোম্পানি বহু লিডিং ব্র্যান্ড বিশেষ করে শাওমির মতো ব্র্যান্ড তারা মিড বাজেট গুলোতে মিডিয়াটেক প্রসেসর ঢালাওভাবে তাদের ফোনে দিচ্ছে । মিডিয়াটেক প্রসেসর গেমিং এর জন্য এখন খুবই ভালো প্রসেসর কিন্তু তার দুর্বল দিক প্রচুর তাদের অনেক প্রসেসর আছে যেগুলোতে হিটিং ইস্যু এখনও পাওয়া যায় মিডিয়াটেকর এই ধারাবাহিকতাটা নেই তাদের কোন প্রসেসর ভালো হয় হিটিং ইস্যু হয় না আবার কোন প্রসেসর এর প্রচন্ড হিটিং ইস্যু দেখা যায় ।

তাদের প্রসেসরে এটা দেখা যায় যে ডেভলপারদের সাপোর্ট সেই ভাবে পাওয়া যায়না তার ফলে তাদের প্রসেসরের জন্য GKM সাপোর্ট আমরা সেরম পাইনা কাস্টম রম সেভাবে পাইনা । এবং তাদের প্রসেসর সব রকম গেমিং এর জন্য সেভাবে অপটিমাইজ থাকেনা । গেম ডেভলপাররা যখন একটা গেম তৈরি করে তারা সাধারণত একেকটা প্রসেসরের জন্য তাদের গেম টাকে ঠিকঠাক অপটিমাইজ করে সেটা মিডিয়াটেকের জন্য করেনা কিন্তু তারা সেগুলো করে সবসময় 99% পার্সেন্ট ক্ষেত্রে করে তারা স্ন্যাপড্রাগন প্রসেসর এর জন্য ।


snapdragon processor-min.jpg
Qualcomm Snapdragon Processor
কোয়ালকম কোম্পানি এই স্ন্যাপড্রাগন প্রসেসর তৈরি করে এবং তারাও ARM এর থেকেই আর্কিটেকচার কিনে এবং কিনে সেটাকে মডিফাই করে তারপর কর্টেক্স নাম দিয়ে তাদের প্রসেসর এর মধ্যে সেটাকে ইনক্রিমেন্ট করে । অবশ্যই কর্টেক্স খুবই ভালো এবং তাদেরকে যে GPU আছে অ্যাড্রিনো GPU সে GPU পারফরম্যান্স আমরা দেখেছি বরাবর ভালো । এবং সেটা হবে নাই বা কেন অ্যাড্রিনো GPU জন্য সবসময় সব গেমকের সব অ্যাপ্লিকেশান কেউ বিভিন্ন রকম অ্যাপ্লিকেশন আছে এডিটিংয়ের অ্যাপ্লিকেশন সে গুলোকে সেইভাবে ডেভলপ করা হয় । আমরা দেখেছি কাইনমাস্টার যেটা দিয়ে আমি ভিডিও এডিট করি ফোনের মধ্যে সেই কাইনমাস্টার অ্যাপ্লিকেশন টা মিডিয়াটেকের হিলিও G90T প্রসেসর এ সাপোর্ট করে না । কাইনমাস্টার অ্যাপ্লিকেশন অথচ সবসময় কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন এর যে কোনো প্রসেসরকে সাপোর্ট করে ।

এখানেই পিছিয়ে যায় মিডিয়াটেক এখানেই এগিয়ে যায় কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন । তাই স্ন্যাপড্রাগন প্রসেসর এ সফটওয়্যার আপডেট ভালো পাওয়া যায় তাদের প্রসেসরের জন্য GKM সাপোর্ট ভালো পাওয়া যায় । তাদের প্রসেসর এর জন্য কাস্টম রম প্রচুর পাওয়া যায় পারফরম্যান্স, ফিচার, পাওয়ার, এআই, এনপিউ যেকোনো জিনিস যেকোনো একটা জিনিস আপনি নিয়ে নিন বেছে এবং সেখানে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন প্রসেসর সব সময় এগিয়ে থাকবে । কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন প্রসেসর ইমেজ প্রসেসিং ও দুর্ধর্ষ তারা 4K 60FPS ইমেজ প্রসেসিং সেটাও অনেক তাড়াতাড়ি অনেক আগে নিয়ে এসেছিল । এবং এর ও বাইরে তারা বিভিন্ন রকম মডেল তৈরি করে তারা ফোরজি মডেম ফাইভ-জি মডেম এইসব তৈরি করার ব্যাপারে একেবারে পথিকৃৎ ।

সেক্ষেত্রে তাদের প্রসেসর যেরকম আপনারা কিনছেন তার সাথে সাথে ঠিকঠাক কম্পিটেবল ঠিকঠাক ম্যাচ করবে এরকম মোডেম আপনি পেয়ে যাবেন । আপনার ফোন আরো বেটার পারফর্ম করবে এমনকি তারা এখন ফাইভ-জি মডেম তে ও তাদের নতুন চিপসেট গুলোর সাথে ইন্টিগ্রেটেড মানে ভেতরে একদম ফিক্স করে দিয়ে দিয়েছে । আলাদা করে কেনার প্রয়োজন পড়বে না একসাথে কিনবেন এবং সেটা খুব ভালো পারফর্ম করবে । এবং এখান থেকেই সমস্যা শুরু আমরা জানি কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন প্রসেসরের দাম অসম্ভব বেশি । তাদের প্রসেসর মনোপলি চলছে আসলে এখন আমরা কোয়ালকমের প্রসেসর আছে শুনলে চোখ বন্ধ করে সেটার উপর ভরসা করি সেটা কিনে নেয় । এবং তার জন্য তারা যেকোন প্রাইস চার্জ করে তারা একটা নতুন প্রসেসর বের করে তারা যে দাম চাইবে কোম্পানিগুলো স্মার্টফোন কোম্পানি গুলো সেই দাম দিতে রাজি আছে কারণ তারা জানে যে গ্রাহক সেটাই চাইছে । কোন জিনিসের ক্ষেত্রেই মনোপলি ঠিক নয় কিন্তু কোয়ালকমের ক্ষেত্রে এখন যেটা হয়েছে সেটা হচ্ছে মনোপলি তৈরি হয়ে গেছে ।

হ্যাঁ অবশ্যই যদি এক্সিনোস আগামীদিনে ADM এর সাথে কোলাবোরেশন কিছু তৈরি করতে পারে যদি মিডিয়াটেক ঠিকঠাক কাজ করে আরো উঠে আসতে পারে তাহলে হয়তো কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন এর এই মনোপলি টা ব্রেক হবে । সেক্ষেত্রে আমরা একটু সস্তায় পরে কোয়ালকম প্রসেসর পেতে পারবো । কোয়ালকম তাদের একটা প্রচারের যেটা একটা লিক এসেছিল যদিও সেটা ফেক খবর শোনা গেছিল কিন্তু সেখানে আমরা আইডিয়া পাই কোয়ালকম তাদের একটা প্রসেসর এ কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন 876 প্রসেসর এ $250 লাভ করবে । একটা প্রসেসর এর জন্য আড়াইশো ডলার লাভ রাখা বুঝতে পারছেন ওই দামে আমরা একটা স্মার্টফোন ক্রয় করি । সেক্ষেত্রে কোয়ালকমের এই মনোপলি শেষ হওয়া দরকার তারা তো লাভের মার্জিন দিনকে দিন বেড়েই চলেছে কারণ তারা জানে তাদের কোনো কম্পিটেটর নেই । তারা যত লাভ ই রাখুক যতই দাম বাড়াক স্মার্ট ফোন কোম্পানিগুলো তাদের প্রসেসর কিনবে ।

তবে কোয়ালকমের সুদিন বরাবরই এরকম ছিল না একটা সময় তাদের যথেষ্ট বদনাম ছিল হিটিং ইস্যুর জন্য । কোয়ালকম স্নাপড্রাগণ 810 প্রসেসর এটা রীতিমতো হিট করত এবং তার জন্য ওয়ান প্লাস টু এই ফোনটা প্লপ পড়ে গেছিল সেই ফোনটা থেকে হিটিং ইস্যু ছিল সে ক্ষেত্রে একরকম বলা হয়েছে কোয়ালকমের নিজের কম্পিটেটর নিজেই কিন্তু কোয়ালকমের থেকেও এগিয়ে আছে অ্যাপেল ।


apple bionic processor -min.jpg
Apple Bionic Processor
অ্যাপেল তাদের যে বায়োনিক চিপ তৈরি করে বায়োনিক A13, A12, A14 এইসব চিপ এর যে নাম আমরা শুনেছি সেই প্রসেসর গুলো অবশ্যই কোয়ালকমের থেকেও বেটার পারফর্ম করে তার থেকে একটুখানি হলেও এগিয়ে থাকে । আমি বলবে একটুখানি না বেশ অনেকটাই এগিয়ে থাকে সবদিক দিয়ে পারফরম্যান্স বলুন ইমেজ প্রসেসিং বলুন সব দিক দিয়েই । যদিও তারা ওই টিএসএমসি এর কারখানা থেকেই চিপ তৈরি করে আনে কিন্তু অ্যাপেলের সমস্যা হচ্ছে যে তারা তাদের আইফোন ছাড়া আর কোথাও তাদের ওই বায়োনিক চিপ বিক্রি করে না কাউকে দেয় না কোন কোম্পানিতে দেয় না তাই কোয়ালকমের মনোপলি এখনো চলছে ।

আগামী দিনেও যেটুকু দেখে মনে হচ্ছে বেশ কিছুদিন চলবে যতদিন না AMD এর মত কোম্পানি যতদিন না গুগলের মত কোম্পানি যতদিন না স্যামসাংয়ের মতো কোম্পানির বা মিডিয়াটেকের মতো কোম্পানির কেউ এগিয়ে আসে এবং কোয়ালকম ঠিকঠাক কম্পিটিশন যেতে পারে । অ্যাপেল যদি অন্য কোম্পানিতে তাদের চিপ বিক্রি করে তাহলে ও পরিবর্তন হতে পারে পরিস্থিতি তবে সেটা তো হওয়ার নয় । দেখা যাক আগামী দিনে প্রসেসর আমরা কার থেকে ভাল পায় এবং সস্তায় পায় সস্তায় পাওয়াটা খুব ইম্পর্টেন্ট ।

কিন্তু আমাদের জন্য আমরা যদি একটা ফোন কিনতে চাই আমাদের অবশ্যই কোয়ালকমের প্রসেসর কেনা উচিত কিন্তু কোন প্রসেসর কেনা উচিত কোয়ালকমের সেই ব্যাপারে অন্য দিন অন্য কোন পোস্টে আলোচনা হবে কথা হবে তার জন্য আমাদের পাশে থাকবেন । নিছে কমেন্ট এ আপনার মতামত দিবেন । ধন্যবাদ …